অ্যান্টি-ডলার নাম ছাড়াও, ইউরোকে “ফাইবার” বলা হয়ে থাকে। অনেকে বলে এই নাম ট্রান্স-আটলান্টিক ফাইবার অপটিক থেকে এসেছে। এটা যোগাযোগের জন্য ব্যাবহৃত হয়েছিলো। অনেকে আবার বলে যে এটা অনেক আগে যে ইউরোপিয়ান ব্যাংকনোট প্রিন্ট করতে যে কাগজ ব্যাবহার করা হত তার থেকে এসেছে।